বাসুনকে, মা
লুনা শীরিন
পর্ব ৩৭

বাসুন,

এমন নিঃশব্দ ছুটির দিন মনে হয় কখনোই কাটেনি, তোর আর আমার জন্য এই দুটো দিনই ছিলো নীরব, নিষ্প্রাণ, আমি বহন করেছি শুধুমাত্র আশংকা আর তুই কিছুক্ষন পরে পরেই এসে আমাকে বলেছিস ডোন্ট ওরি আম্মু, সব ঠিক থাকবে আগামীকাল ঠিক এই সময়টাতে আমি থাকবো তোর থেকে  প্রায় চারঘন্টার ড্রাইডিং দুরত্বে, নায়গ্রা শহরে চারদিনের একটা সেমিনারেকি আশ্চর্ষ অনুভুতি হচ্ছে আমার, এই আমিই মাত্র বছর চারেক আগেও একঘন্টার নোটিশে ঢাকা ছেড়েছি, কি নিশ্চিন্তে উঠে পড়েছি আমি কুড়িগ্রাম, রংপুর, নোয়াখালি, নীলফামারী, চিটাগং এ, বিন্দুমাত্র ভাবনা ছাড়াইকখনো কখনো অফিস থেকে এসে তোকে  বাড়িতে পাইনি, তোর মুখটা একবার না দেখেও আমি ঢাকা ছেড়েছি দীর্ঘদিন, আমার মনে হয়েছে তোর নানীআপুর কাছে তো তুই আমার চেয়েও নিরাপদএকদিন কি হয়েছিলো জানিস বাবু, তখন আমি ব্র্যাক এ কাজ করি, প্রচুর ফিল্ডে যেতে হয় আমারএকবার যাবো রংপুরে মাত্র দুদিনের জন্য, সাথে গাড়ি থাকবে তাই তোর নানীআপুকে রাজী করালাম তোকে নিয়ে যাবোসব গোছগাছ শেষ, গাড়িতে ব্যাগ উঠানো হয়ে গেছে,  হঠা তোর নানীআপু বলে বসলো থাক, নাইয়ার যেতে হবে নাএই বলে নানীআপু তোকে কোলে নিয়ে চলে গেলেন

আজ এই অবেলায়  মনে পড়ছে এসব কথা, এই শহরে আত্মীয় পরিজনহীন জীবনযাপনে শুধু তোকে অন্য বাড়িতে টাকা দিয়ে রেখে যেতে হবে বলেই আমার ট্রেনিং এর সব আনন্দ যেন ম্লান হয়ে যাচ্ছেযদিও জানি যারা রাখতে রাজী হয়েছেন তারা ভালোবেসেই রাজী হয়েছেন, টাকা দিয়ে কাজ আদায় করা যায় দায়িত্বকে কেনা যায় নাকিন্তু তবুও র্দুভাবনা আমার পিছু ছাড়ছে নাএই ছুটির দুটো দিনে আমি শুধুই তোকে রেখে কি করে থাকবো সেই ভাবনাই ভাবছি প্রতিমুহুর্ত

কতবেশী প্রতিকুলতার ভিতর দিয়ে আজকের সময়গুলো পার হচ্ছে বাবু জানিস তুই? কোনদিন কি তোর আর আমার সেই সময় হবে যে আমরা বসে আমাদের আজকের এই ফেলে আসা সময়গুলোকে মনে করবো? আজ রবিবার, টরোন্টোতে হু হু বাতাস বইছে, বিকেল সাড়ে চারটা কিন্তু চারিদিক  অন্ধকার হয়ে এসেছে, আমরা একটু আগেই তোর বেবীসিটার এর বাড়িতে আগামী চারদিনের জন্য তোর প্রয়োজনীয় সব জিনিস পৌছে দিয়ে এলামফেরার পথেই তুই আর আমি বসেছিলাম একটা কফিশপেএকটা কথা কি জানিস বাবু, ব্যক্তি মানুষ যদি নিজে  সমস্যাকে মোকাবেলা না করে তাহলে কখনোই প্রোপার লেসনটা আসে নাআমি যদি তোকে নিয়ে একা একা এতটা পথ পাড়ি না দিতাম তাহলে আমি কিছুতেই  বিশ্বাস করতাম না যে, একমাত্র মানুষকে দিয়েই সব সম্ভব, নারী/পুরুষের ভাবনাটা সেখানে ভীষনভাবে গৌণএই বছর নভেম্বর এ তোর বয়স নয় হবে, আজ প্রায় ৮ বছর হতে চলল তোর হাত ধরেই আমার জীবন, ঢাকায় মায়ের বাসার ৪ বছর বাদ দিলে এই শহরে আমি পার করছি  প্রায় চার বছর, অনেকবার, বলতে পারিস বহুবার আমার মনে হয়েছে তোকে নিয়ে কি করে আমি একটা ফুলটাইম জব করবো? কিন্তু আমি হাল ছাড়িনি, আমি দীর্ঘদিন স্বপ্ন দেখেছি যে আমি একটা চাকরি করবো তোকে নিয়ে একটা সুখের দিন রচনা করবো, এর জন্য যা যা প্রস্তুতি নেবার আমি সব  করার জন্যও নিজেকে প্রস্তুত করেছি আমি জানি আমার এই লেখা যারা পড়েন তারা হয়তো অনেকেই ভাবেন , কি আছে এই লেখায়? এখানে তো শুধু আমি নিজের জীবনের কথাই বলছি, কিন্তু আমার জীবনের বাইরে কি আমি যেতে পারবো? বা আমার ব্যর্থ জীবন দিয়েও কি আমি  অন্য কোন জীবনের স্বপ্ন রচনা করতো পারবো? আমি যদি তোকে নিয়ে মাথা উঁচু করে দাড়াবার স্বপ্ন না দেখে শুধু বেঁচে থাকতে চাইতাম তাহলে কি আমি তোর ভিতরে কোন শক্তিকে বপন করতো পারতাম, বা নিজেও  কি আত্মবিশ্বাস নিয়ে পথ চলতে পারতাম? তোকে খাওয়া পরার ব্যবস্থা করে দেয়াই কি সব করে দেয়া? আমি এই শহরে খালি হাতে এসেছি বাবু, সত্যিকার অর্থেই খালি হাতে, ডিসেম্বর মাসের পুরোদস্তুর  বরফে যেদিন পা রেখেছিলোম সেদিন শক্তি দিয়েছিলো ছোটবোন, আজও শক্তি দেবে অন্য একটি পরিবার যারা তোকে রাখতে রাজী হয়েছেন, মানুষ চেষ্টা করলেই  ভরসা খুজে পায়, চাইলেই সে দাঁড়াতে পারে শক্ত হয়ে, শুধু দরকার হয় প্রবল ইচ্ছা শক্তিবাবু, তোকে সেই বিশ্বাসের গল্পটাই বলে যেতে চাই শুধু, আগামী চারদিন তুই  সুস্থ্য থাকবি, আমার সব র্দুভাবনার কপালে ছাই উড়িয়ে আমরা আবার ফিরে আসবো আমাদের এই সোনার সংসারে, আমাদের  এই আনন্দের  জীবনেমাত্র চারটে দিন, চোখের পলক ফেলার আগেই চলে যাবে, তোর কপালে অনেক আদর সোনা, ভালো হয়ে থাকিস। 

তোর মা,

২ নভেম্বর, ২০০৮

Email:lunasamir@yahoo.com

পর্ব ৩৬